চাঁদপুরের ঐতিহাসিক হাজিগন্জ বড় মসজিদ

ভারতবর্ষে মধ্যযুগে মুসলমানদের আগমন ঘটে বলে ধরে নেয়া হয়। বখতিয়ার খলজী কর্তৃক ১২০৪-০৫ খ্রিস্টাব্দের দিকে বঙ্গ বিজয়ের মাধ্যমে বাংলায় মুসলমান শাসনের সূচনা হয়। তবে এর আগে বারো শতকের শেষের দিকে আফগানিস্তানের ঘোরী বংশীয়দের দিল্লি অধিকারের মধ্যে দিয়ে কয়েক বছরের মধ্যেই বাংলায় মুসলমানদের গোড়াপত্তন ঘটেছিল। এটা সত্য যে, বাংলায় মুসলমানদের আগমন ও মুসলিম শাসন শুরু শুধুমাত্র রাজনৈতিক ক্ষেত্রেই নয়, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক ক্ষেত্রেও বহুমাত্রিক পরিবর্তন আনে।

বাংলার স্থানীয় মুসলমানদের সাথে বহিরাগত মুসলমান তথা আরব, পারস্য ও আফগানদের জীবন উপাদানের সমন্বয়ের ফলে সব ক্ষেত্রে ভারতীয় মুসলিম নামে পরিবর্তনের সূচনা হয়। এ সময় অনেক উপাদানের সাথে বাংলার স্থাপত্য শিল্পের যে বিকাশ সাধিত হয় তা মূলত মুসলমানগণ নিয়ে এসেছিলেন ধর্মীয় প্রয়োজনের সাথে সঙ্গতি রাখতে।

বিশেষ করে, তৎসময়ে মুসলমানরা ইমারত নির্মাণে ক্ষেত্রে কাঠামো পরিকল্পনার সাথে যে নির্মাণশৈলী ফুটিয়ে তুলেছে তাতে ভারতীয়দের কোন পরিচয় ছিল না।

তারা প্রাক-ইসলাম যুগে ব্যবহৃত রোমান-বাইজেন্টীয় ও পারসিক থেকে এমনভাবে গ্রহণ করে যে, এগুলো মুসলিম ইমারতের অবিচ্ছেদ্য অংশে পরিণত হয়। মধ্যযুগে ধর্মীয় স্থাপত্য নিদর্শনগুলোর মধ্যে মুসলমানদের নির্মিত মসজিদগুলো অন্যতম। মিনহাজের তবকাত-ই-নাসিরী গ্রন্থে বলা হয়েছে যে, বখতিয়ার খলজী মসজিদ, মাদ্রাসা ও খানকা নির্মাণ করেছিলেন।

এমন একটি অনন্য মুসলিম স্থাপত্য নিদর্শন হলো চাঁদপুর জেলার হাজীগঞ্জ ঐতিহাসিক বড় মসজিদ।

হাজীগঞ্জ ঐতিহাসিক বড় মসজিদ চাঁদপুর জেলা সদর থেকে ২০ কিলোমিটার পূর্বে হাজীগঞ্জ উপজেলায় অবস্থিত। ঐতিহাসিক এই মসজিদটি নির্মাণের একটি সুদীর্ঘ ইতিহাস রয়েছে।

হাজীগঞ্জ ঐতিহাসিক বড় মসজিদের সমৃদ্ধ ইতিহাসের অংশ হিসেবে উল্লেখ্য যে, বাংলা এগার’শ পঁছাত্তর থেকে বার’শ সালের মধ্যে হযরত মকিমউদ্দিন (রহ.) নামে এতজন বুজুর্গ অলীয়ে কামেল ইসলাম ধর্ম প্রচারের উদ্দেশ্যে পবিত্র আরব ভূমি থেকে অত্র এলাকায় আগমন করেছিলেন। তিনি স্বপরিবারে বর্তমান বড় মসজিদের মেহরাব সংলগ্ন স্থান, যেখানে একটু উঁচু ভূমি বিদ্যমান ছিল, সেখানে আস্তানা তৈরি করে পরিবার পরিজন নিয়ে বসতি স্থাপন করেন।

তিনি অত্যন্ত বিনয়ী ছিলেন। তাঁর প্রজ্ঞা, জ্ঞান ও চারিত্রিক মাধুর্যে মুগ্ধ হয়ে বহু লোক তাঁর কারেছ দীক্ষা নিয়ে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেন। তিনি দু’একজন নব্য মুসলমান নিয়ে চৌধুরী ঘাটে নামাজ আদায় করতেন। হিন্দু-মুসলমান সকলের কাছে তিনি শ্রদ্ধাভাজন ছিলেন।

মূলত এ এলাকায় হাজী মকিমউদ্দিন (রহ.) ইসলাম ধর্ম প্রচারের মাধ্যমে ইসলামের আবাদ করেন। তারই বংশের শেষ পুরুষ হযরত মনিরুদ্দিন হাজী ওরফে মনাই হাজী (রহ.)’র দৌহিত্র আহমাদ আলী পাটওয়ারী (রহ.) বাংলা তেরশ পঁচিশ থেকে ত্রিশ সালের সালের দিকে বড় মসজিদের মেহরাব বা তৎসংলগ্ন স্থান জুড়ে প্রথমে একচালা খড়ের ইবাদতখানা, অতঃপর খড় এবং গোলপাতা দিয়ে তৈরি দো’চালা মসজিদ নির্মাণ করেন।

বাংলায় মুসলমানদের আগমন ও মুসলিম শাসন শুরু শুধু রাজনৈতিক ক্ষেত্রেই নয়, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক ক্ষেত্রেও বহুমাত্রিক পরিবর্তন আনে। বাংলার স্থানীয় মুসলমানদের সঙ্গে বহিরাগত মুসলমান তথা আরব, পারস্য ও আফগানদের জীবন উপাদানের সমন্বয়ের ফলে সব ক্ষেত্রে ভারতীয় মুসলিম নামে পরিবর্তনের সূচনা হয়। এ সময় অনেক উপাদানের সঙ্গে বাংলার স্থাপত্যশিল্পের যে বিকাশ সাধিত হয়, তা মূলত মুসলমানরা নিয়ে এসেছিলেন ধর্মীয় প্রয়োজনের সঙ্গে সংগতি রাখতে। বিশেষ করে, সে সময় মুসলমানরা ইমারত নির্মাণের ক্ষেত্রে কাঠামো পরিকল্পনার সঙ্গে যে নির্মাণশৈলী ফুটিয়ে তুলেছেন, তাতে ভারতীয়দের কোনো পরিচয় ছিল না। তাঁরা প্রাক-ইসলাম যুগে ব্যবহৃত রোমান-বাইজেন্টীয় ও পারসিক থেকে এমনভাবে গ্রহণ করেন যে সারা বিশ্বে এগুলো মুসলিম ইমারতের অবিচ্ছেদ্য অংশে পরিণত হয়। মধ্যযুগে ধর্মীয় স্থাপত্য নিদর্শনগুলোর মধ্যে মুসলমানদের নির্মিত মসজিদগুলো অন্যতম। এমন একটি অনন্য মুসলিম স্থাপত্য নিদর্শন হলো চাঁদপুর জেলার হাজীগঞ্জ ঐতিহাসিক বড় মসজিদ।

হাজীগঞ্জ ঐতিহাসিক বড় মসজিদ। এটি চাঁদপুর জেলা সদর থেকে ২০ কিলোমিটার পূর্বে হাজীগঞ্জ বাজারে অবস্থিত। ঐতিহাসিক এই মসজিদটি নির্মাণের একটি সুদীর্ঘ ইতিহাস রয়েছে। হাজীগঞ্জ ঐতিহাসিক বড় মসজিদের সমৃদ্ধ ইতিহাসের অংশ হচ্ছে—বাংলা ১১৭৫ থেকে ১২০০ সালের মধ্যে হজরত মকিমউদ্দিন (রহ.) নামে একজন বুজুর্গ ওলিয়ে কামেল ইসলাম ধর্ম প্রচারের উদ্দেশ্যে পবিত্র আরব ভূমি থেকে অত্র এলাকায় আগমন করেছিলেন। তিনি সপরিবারে বর্তমান বড় মসজিদের মেহরাবসংলগ্ন স্থান, যেখানে একটু উঁচু ভূমি বিদ্যমান ছিল, সেখানে আস্তানা তৈরি করে পরিবার-পরিজন নিয়ে বসতি স্থাপন করেন। হিন্দু-মুসলমান সবার কাছে তিনি শ্রদ্ধাভাজন ছিলেন। মূলত এ এলাকায় হাজি মকিমউদ্দিন (রহ.) ইসলাম ধর্ম প্রচারের মাধ্যমে ইসলামের আবাদ করেন। তাঁরই বংশের শেষ পুরুষ হজরত মনিরুদ্দিন হাজি ওরফে মনাই হাজি (রহ.)-এর দৌহিত্র আহমাদ আলী পাটওয়ারী (রহ.) বাংলা ১৩২৫ থেকে ১৩৩০ সালের দিকে বড় মসজিদের মেহরাব বা তত্সংলগ্ন স্থানজুড়ে প্রথমে একচালা খড়ের ইবাদতখানা, অতঃপর খড় ও গোলপাতা দিয়ে তৈরি দোচালা মসজিদ নির্মাণ করেন। যা পরবর্তী সময়ে টিনের দোচালা মসজিদ থেকে পাকা মসজিদ স্থাপনের উদ্যোগ গ্রহণ করেন। ১৩৩৭ বঙ্গাব্দের ১৭ আশ্বিন আহমাদ আলী পাটওয়ারী (রহ.)-এর পরম ইচ্ছায় হজরত মাওলানা আবুল ফারাহ জৈনপুরী (রহ.)-এর পবিত্র হাতে পাকা মসজিদের ভিত্তি স্থাপন করা হয়।

হাজীগঞ্জ ঐতিহাসিক বড় মসজিদ এ অঞ্চলের অন্যতম মুসলিম নিদর্শন হিসেবে পরিচিত। মসজিদটি নির্মাণকালে স্থাপত্যশিল্পের যে নির্মাণশৈলী দেওয়া হয়েছে, তা যেন স্থাপত্যশিল্পেরই বিশুদ্ধ ব্যাকরণ। মসজিদের বিভিন্ন অংশে যে কারুকাজ ফুটিয়ে তোলা হয়েছে, তা কালের সাক্ষ্য বহন করছে। ঐতিহ্যবাহী এই মসজিদ তিন অংশে নির্মিত হয়েছে। প্রথম অংশ চার হাজার ৭৮৪ বর্গফুট, মাঝের অংশ ১৩ হাজার ছয় বর্গফুট এবং তৃতীয় অংশে এক হাজার ৬১৫ বর্গফুট। সর্বমোট ২৮ হাজার ৪০৫ বর্গফুট আয়তনের ওই মসজিদের প্রথম অংশে হজরত মাওলানা আবুল ফারাহ জৈনপুরী (রহ.) ভারী শরীর নিয়ে মাচার ওপর বসেন, তাঁর পবিত্র হাতে চুন-সুরকির মসলা কেটে কেটে মেহরাবসংলগ্ন দেয়াল ঘুরিয়ে মসজিদের প্রথম অংশের ওপরের দিকে ‘সুরা ইয়াছিন’ ও ‘সুরা জুমআ’ লিপিবদ্ধ করেন। বর্তমান সময়ে সংস্কারকালে তা উঠিয়ে মসজিদের কবরস্থানে দাফন করা হয়। ওই মসজিদের অনন্য সুন্দর মেহরাবটি কাচের ঝাড়ের টুকরো নিখুঁতভাবে কেটে কেটে মনোরম ফুলের ঝাড়ের মতো আকর্ষণীয় নকশায় সাজিয়ে তোলা হয়েছে। মাঝের অংশটি ৭৭টি আকর্ষণীয় পিলার ও ঝিনুকের মোজাইক দিয়ে নির্মিত হয়েছিল। তৃতীয় অংশটিতে রয়েছে তিনটি বিশাল গম্বুজসহ আকর্ষণীয় বিশাল সুউচ্চ মিনার। যা মসজিদটিকে আলাদা বিশেষত্ব দান করেছে।

১৯৫৩ সালে ১২৮ ফুট উঁচু এই মিনারটি তৈরি হয়েছিল। সুউচ্চ এই মিনারটিরও আলাদা একটি বৈশিষ্ট্য রয়েছে। আর তা হলো—মসজিদের প্রধান প্রবেশদ্বারের ওপর এত উঁচু মিনারের উপস্থিতি সেকালের নির্মাণ বিষয়টিকে ভাবিয়ে তোলে। মিনারের উঁচু প্ল্যাটফর্মে বহু মুসল্লি ও পর্যটক উঠে হাজীগঞ্জের চারপাশের দৃশ্য অবলোকন করেন। প্রতিদিন মিনারের উঁচু থেকে একযোগে মাইকে আজান প্রচার করা হয়। বহু দূরদূরান্ত থেকে এই আজানের ধ্বনি শোনা যায়। কারুকার্যখচিত মসজিদের সর্বশেষ পূর্ব প্রাচীরে পবিত্র কালেমা শরিফ খচিত চীনা বাসনের টুকরো দিয়ে তৈরি মনোরম ফুলের ঝাড়ের মতো আকর্ষণীয় করে সাজানো বিশাল ফটক। মসজিদে প্রবেশের সুবিশাল ফটকের আকর্ষণীয় সাজ দর্শনার্থীদের মন কেড়ে নেয়। পাথরের সাজে সজ্জিত অসংখ্য তারকাখচিত তিনটি বড় বড় গম্বুজ পর্যটকদের আকর্ষণ করে। মসজিদটি পবিত্র রমজান মাসে জুমাতুল বিদার জামাতের জন্য ঐতিহাসিকভাবে প্রসিদ্ধ রয়েছে। একসময় পাক-ভারত উপমহাদেশের মধ্যে হাজীগঞ্জ ঐতিহাসিক বড় মসজিদ অনন্য বৃহত্তম জুমাতুল বিদা নামাজের জামাত উদ্যাপনের প্রতিষ্ঠান হিসেবে খ্যাত ছিল। ঐতিহ্যের ধারাবাহিকতায় মসজিদটিতে পবিত্র রমজান মাসে রোজা রেখে দূরদূরান্ত থেকে অনেক কষ্ট করে লক্ষাধিক রোজাদার মুসল্লি এখনো জুমাতুল বিদা নামাজের জামাতে সমবেত হয়ে থাকে।