৩০০০ বছর আগেকার শহরের সন্ধান!

প্রাচীনকালে পৃথিবীর বিভিন্ন জায়গায় তৈরি হয়েছিল বিভিন্ন সভ্যতা। বিখ্যাত অনেক সভ্যতার ব্যাপারে আমরা কমবেশি জানলেও এমন অনেক সভ্যতা বা পুরনো জনপদ গড়ে উঠেছিল যেসব সম্পর্কে খুব বেশি জানতে পারেননি প্রত্নতত্ত্ববিদরাও। খননকাজ চালানোর পর গত বছর সে রকমই এক শহরের হদিস মিলেছে পূর্ব আফ্রিকার ইথিওপিয়াতে। যে শহর টিকে ছিল প্রায় এক হাজার ৪০০ বছর।

খ্রিস্টপূর্ব ৮০ থেকে ৮২৫ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত পূর্ব আফ্রিকাতে ছিল আকসুম সভ্যতা। শতাব্দীর পর শতাব্দী ধরে ওই অঞ্চলকে নিয়ন্ত্রণ করেছে এই সভ্যতা। রোমের মতো শক্তিশালী সভ্যতার সঙ্গেও বাণিজ্যের সম্পর্ক ছিল আকসুম সভ্যতার মানুষের। চীন ও প্রাচীন পারস্যের সঙ্গেও সম্পর্ক গড়ে উঠেছিল এই সভ্যতার। নয়া আবিষ্কৃত এই শহর তার সমসাময়িক।

আকসুম সভ্যতার প্রধান শহরের নাম ছিল আকসুম। যদিও কিভাবে এই সভ্যতা গড়ে উঠেছিল, সে বিষয়ে আজও স্পষ্ট ধারণা নেই গবেষকদের। তবে মনে করা হয় প্রাক-আকসুম কোনো জনপদ থেকেই উত্তর ইথিওপিয়ায় গড়ে ওঠে আকসুম সভ্যতা।

আকসুম সভ্যতার উৎস জানতে যুক্তরাষ্ট্রের জনস হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা উত্তর ইথিওপিয়ার ইয়েহা অঞ্চলের কাছে খননকাজ শুরু করেন। সেখানেই তাঁরা যে শহরের খোঁজ পেয়েছেন, তা প্রাক-আকসুম যুগের। খননকাজ চালানোর পর প্রত্নতাত্ত্বিকরা খুঁজে পেয়েছেন পাথরের দেয়ালের সারি। তাঁরা মনে করছেন, এসব সে সময় গড়ে তোলা বাড়ির ধ্বংসাবশেষ।

জনস হসকিন্সের গবেষক মাইকেল হ্যারোয়ার বলেন, ‘এটি খুব গুরুত্বপূর্ণ একটা সভ্যতা। কিন্তু পশ্চিমী দুনিয়া এই সভ্যতার ব্যাপারে জানেই না। গ্রিস ও রোমের বহু কিছু আবিষ্কৃত হয়েছে। কিন্তু ইথিওপিয়ার এই সভ্যতার ব্যাপারে অনেক কিছুই অজানা।’

গবেষকরা এই প্রাচীন সভ্যতাকে বিটা সেমাতি বলে ডাকেন। স্থানীয় টিগরিনিয়া ভাষায় যার অর্থ ‘দর্শকদের বাড়ি’। এই বিটা সেমাতি আবিষ্কারকে অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ বলে মনে করেন লল্ডন বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষক জ্যাক ফিলিপস। তিনি বলেছেন, ‘আকসুমের ব্যাপারে জানলেও, ওই অঞ্চলে আকসুম পূর্ববর্তী সভ্যতার ব্যাপারে কোনো ধারণাই এত দিন ছিল না।’

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.