রক্তে শর্করার পরিমাণ নিয়ন্ত্রণ করে ডাবের পানি

​রক্তে শর্করার পরিমাণ নিয়ন্ত্রণ করে ডাবের পানি

বর্তমানে অনেকেই ব্লাড সুগারের সমস্যায় ভোগেন। রক্তে অনিয়ন্ত্রিত শর্করার বৃদ্ধি ডেকে আনে নানা বিপদ। রক্তে শর্করার পরিমাণ তাই নিয়ন্ত্রণে রাখা খুবই আবশ্যক। রক্তে শর্করার পরিমাণ বেড়ে গেলে যেমন কিডনির সমস্যা, হৃদরোগ, চোখের সমস্যা ইত্যাদি নানা রোগের কারণ হয়ে দাঁড়ায়, আবার শর্করার পরিমাণ কমে গেলেও কিন্তু বিপদ। তাই রক্তে শর্করার পরিমাণ বা ব্লাড সুগার নিয়ন্ত্রণে রাখা খুবই আবশ্যক।

পরিমিত খাদ্য গ্রহণ, নিয়ন্ত্রিত জীবনযাপন, শরীরচর্চা ইত্যাদি নানা ভাবে অনেকই শর্করার পরিমাণ নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করে থাকেন, কিন্তু প্রত্যাশিত ফল পাওয়া যায় না। কিন্তু এমন এক পানীয় আছে যা খুব সহজলভ্য ও রক্তে শর্করার পরিমাণ নিয়ন্ত্রণে যার জুড়ি মেলা ভার।

ডাবের পানি। ডাবের পানি খাওয়ার আগে অবশ্যই মনে রাখবেন ডাবের পানিটি যাতে কম মিষ্টি যুক্ত হয়। নিয়মিত ১ কাপ থেকে ২ কাপ ডাবের পানি পান করা রক্তে শর্করা নিয়ন্ত্রনে উপযোগী। আসুন দেখেনি ডাবের পানি কিভাবে রক্তে শর্করার পরিমাণ নিয়ন্ত্রণ করে ও শরীরকে সতেজ রাখে।

ডাবের পানি নানা খনিজ পদার্থ সম্বৃদ্ধ একটি স্বাস্থ্যকর পানীয়। এতে প্রচুর পরিমাণ সোডিয়াম, পটাসিয়াম, ফাইবার থাকে যা রক্তে শর্করার পরিমাণ নিয়ন্ত্রণ করে। যাঁরা উচ্চ রক্তচাপের সমস্যায় ভোগেন তাদের জন্য ও ডাবের পানি ভীষণ উপকারী পানীয়।

মধুমেহ বা ডায়াবেটিস থাকলে অনেক সময় রোগীর রক্ত সঞ্চালনে সমস্যা দেখা দেয়। যার ফলে চোখের সমস্যা, কিডনি বিকল হওয়া, হৃদরোগের সম্ভাবনা বৃদ্ধি করে। ডাবের পানি দেহে রক্ত সঞ্চালনের ক্ষেত্রে অগ্রণী ভূমিকা পালন করে।

ওজন বৃদ্ধি ডায়াবেটিসের অন্যতম প্রধান কারণ বলে চিকিৎসকরা বিবেচনা করেন। তাই ওজন হ্রাস করতে চিকিৎসক ও ডায়েটিশিয়ানরা ডাবের পানি খাওয়ার পরামর্শ দেন।

ডাবের পানিতে প্রচুর ফাইবারে সম্বৃদ্ধ। যা মানবদেহে উপযোগী। ডাবের পানিতে উপস্থিত অ্যামিনো অ্যাসিড রক্তে শর্করার পরিমাণ নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে।

ডাবের পানিতে মেটাবোলিজম বৃদ্ধি করে। এর ফলে দেহের হজম প্রক্রিয়া স্বাভাবিক থাকে, খাবার তাড়াতাড়ি হজম হয়। যা রক্তে শর্করার পরিমাণ নিয়ন্ত্রণে উপযোগী।

 

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.