মাটির নিচে পাওয়া গেল ১২০০ বছরের পুরনো ম’সজিদ!

মাটির নিচে পাওয়া গেল ১২০০ বছরের পুরনো ম’সজিদ! ইউরোপের এক সময়ের মু’সলিম অধ্যুষিত দেশ স্পেনের বর্তমান রাজধানী মাদ্রিদের রেকোপোলিস গ্রামে এ ম’সজিদের সন্ধান পাওয়া গেছে। মাদ্রিদের প্রত্নতত্ত্ববিদদের মতে, মাটির নিচ থেকে যে স্থাপনা বেরিয়ে এসেছে তা দেখতো পুরোপুরি ম’সজিদের মতোই। আর এ ম’সজিদটিই ইউরোপের সবচেয়ে প্রাচীন ম’সজিদ হওয়ার প্রবল সম্ভাবনা রয়েছে।

রেকোপোলিস শহরে ৬০০ শতকের দিকে নির্মিত প্রাচীন এ ম’সজিদটি মাটির নিচে চাপা পড়েছিল বলে জানায় প্রত্নতত্ত্ববিদরা। রেকোপোলিস শহরটি ভিসগথিক শাসকরা নির্মাণ করেন। শহরটিতে মু’সলিম শাসনামলের বিভিন্ন নিদর্শন রয়েছে।

স্পেনের আলচালা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ল্যারো ওলমোকে রসিকতা করে বলেন, এখানে একটি প্রাসাদ, একটি চ্যাপেল ও কিছু দোকানপাটের অবশিষ্টাংশ দেখা যায় কিন্তু বাকি শহরটি গেলো কোথায়?

পরবর্তী বছর ২০১৫ সালে তিনি পুরো শহরটির জ’রিপের কাজ শুরু করেন। কয়েকজন সহকর্মীসহ জিওম্যাগনেটিক পদ্ধতিতে তিনি স্থানটির সম্পূর্ণ জ’রিপ করেন। জ’রিপ চলাকালীন সময় প্রত্নতত্ত্ববিদরা লক্ষ্য করেন, অন্যান্য স্থাপনার চেয়ে একটি স্থাপনা ভিন্ন।

তবে নির্মাণ শৈলী দেখে অনুমান করা যাচ্ছে যে, ম’সজিদের আদলে কেবলামুখী এ স্থাপনাটি ম’সজিদই হতে পারে। যদি এটি নিশ্চিত ম’সজিদই হয় তবে তা হবে ইউরোপের সবচেয়ে প্রাচীন ম’সজিদ। যা হিসেবে প্রায় ১২০০ বছরেরও বেশি পুরনো হবে। এমনটিই দাবি করছেন প্রত্নতত্ত্ববিদরা। ব্রিটেনে শত শত তরুণীর ইস’লাম ধ’র্ম গ্রহণ, বিয়ে করছেন মু’সলিম তরুণদের

ব্রিটেনে বাড়ছে তরুণীদের ইস’লাম ধ’র্ম গ্রহণের সংখ্যা ব্রিটেনে তরুণীদের ইস’লাম ধ’র্ম গ্রহণের সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে। সাম্প্রতিক এক সমীক্ষায় দেখা গেছে, গত ১০ বছরে ব্রিটেনে প্রায় ৪০ হাজার মানুষ ধ’র্মান্তরিত হয়েছে এবং এদের অধিকাংশই মূলত ইস’লাম ধ’র্ম গ্রহণ করেছে। তাদের মধ্যে নারীদের সংখ্যা সবচেয়ে বেশি।

দেশটিতে শ্বেতাঙ্গরা, বিশেষ করে মে’য়েরা খ্রিস্টান ধ’র্ম ছেড়ে ইস’লাম ধ’র্ম গ্রহণ করছে। ফলে রক্ষণশীল ব্রিটিশরা বেশ চিন্তিত হয়ে পড়েছে। ব্রিটিশ সংস্থা ‘ফেথ ম্যাটার্স’র সম্প্রতি এক জ’রিপে এ তথ্য উঠে এসেছে। ইস’লাম ধ’র্ম নিয়ে কাজ করা এই সংস্থার জ’রিপে উঠে এসেছে, যারা ধ’র্মান্তরিত হয়েছে তাদের কারো বয়সই ২৭-এর বেশি নয়।

এদের মধ্যে মে’য়েদের সংখ্যা প্রায় ৬২ শতাংশ। ফেথ ম্যাটার্স-এর জ’রিপ অনুযায়ী ব্রিটেনে গত বছর প্রায় পাঁচ হাজার মানুষ ইস’লাম ধ’র্ম গ্রহণ করেছে। ইস’লাম ধ’র্ম নিয়ে পশ্চিমা বিশ্ব সবসময়ই সমালোচনায় মুখরিত।

সমালোচকরা চিন্তিত এই ভেবে যে, বর্তমানে যেখানে ইস’লাম ধ’র্মকে ঘিরে এত বিতর্ক চলছে, তার মধ্যে কী’ভাবে এই ধ’র্মের প্রতি এত আগ্রহী হওয়া যায়? ইস’লাম ধ’র্ম বিশেষজ্ঞরা জানান, যে সব সংখ্যা তাদের কাছে হাজির করা হচ্ছে তাতে তারা বিস্মিত।

তাদের তথ্যের মূল উত্স হলো লন্ডনের ম’সজিদগুলো। ম’সজিদগুলো সবচেয়ে ভালো খবর রাখে এসব বিষয়ে। ইস’লামিক ফাউন্ডেশনে একটি প্রকল্পে কাজ করছেন আয়ারল্যান্ডের মে’য়ে বাতুল আল তোমা। তিনি বলেন, ‘আম’রা লেস্টারে বেশ কিছু বিষয় নিয়ে গবেষণা করছি।

আম’রা জানতে পেরেছি যে, ম’সজিদগুলো সব মু’সলমানের সংখ্যা নির্ভুলভাবে লিপিবদ্ধ করে না। যারা ইস’লাম ধ’র্ম গ্রহণ করেছে অথচ ম’সজিদে যায়নি তাদের কথা কোন ম’সজিদই জানে না। এসব মু’সলমানকে ‘শাহদাহ’ সার্টিফিকেটও প্রদান করা হয়নি।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.