এসি থেকেও ছড়ায় সংক্রমণ!

এসি থেকেও ছড়ায় সংক্রমণ!

এসি থেকেও ছড়ায় কোভিড-১৯ সংক্রমণ। সম্প্রতি আমেরিকার ‘সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশন’ (CDC)-র জার্নালে প্রকাশিত এক গবেষনাপত্র সে রকমই ইঙ্গিত দিচ্ছে। চীনের গানজাংহু প্রদেশে এক রেস্তোরায় ইউহান থেকে এক ব্যক্তি সপরিবার খেতে আসেন। তার পাশাপাশি এক মিটার এর থেকে বেশি দূরত্বে থাকা আর ও দুটি পরিবার খেতে বসেন অন্য দুটি টেবিলে। সামনে ছিল একটি এসি। পরবর্তীকালে দেখা যায় ওই তিনটি পরিবারের মোট ১০ জন কোভিডে  আক্রান্ত হয়েছেন প্রায় একই সময়ে। এই তিন টেবিলের কেউই কিন্তু তাদের নিজেদের মধ্যে কেউ কাকেও স্পর্শও করেননি। পরবর্তীতে ইউহান ফেরত ব্যক্তির শরীরে প্রথম করোনার রোগ লক্ষণ দেখা দেয়।

কোভিড-১৯ ড্রপলেটের মাধ্যমে ছড়ায়। কথা বলা, হাঁচি, কাশির ফলে যে ড্রপলেট তৈরি হয় তা আয়তনে প্রায় ৫ মাইক্রোমিটারের বেশি। এত বড় কণার পক্ষে এক মিটারের বেশি দূর পর্যন্ত যাওয়া খুব মুশকিল। তাই সেটা এক মিটারের মধ্যেই থিতিয়ে পড়ে।

বিজ্ঞানীদের মত, যে ড্রপলেটের এক মিটারের মধ্যে লুটিয়ে পড়ার কথা, এয়ার কন্ডিশনের বায়ুর প্রবাহ সেগুলোকে অনেকটা বেশি দূর পর্যন্ত টেনে নিয়ে যেতে পারে।

এসি থেকে সংক্রমণ প্রতিরোধে করণীয়

• এসির ব্যবহার বন্ধ করুন।
• সেন্ট্রাল এসি আছে, এমন জায়গা থেকে কোভিড-১৯-এর রোগীদের একটু দূরে রাখাই ভাল।
• সেন্ট্রাল এসি আছে এমন হাসপাতালে প্রতি দু’জন রোগীর মধ্যে দূরত্ব আরও একটু বাড়ানোর কথা ভাবা উচিৎ।
• এসি ডিপার্টমেন্টাল স্টোরগুলোতে নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিস কেনার সময় এসির ব্লোয়ার থেকে দূরে থাকার চেষ্টা করুন।
• একান্তই এসি চালাতে হলে অবশ্যই সার্ভিসিং করে তবেই এসি চালান। লকডাউনের বাজারে এসি সার্ভিসিংয়ের লোক পাওয়া একটু মুশকিলের। তাই যতটা নিজে পারা যায়, ততটা সেরে রাখুন। তার পর এসি চালান। দীর্ঘদিন বন্ধ থাকার কারণে এর মধ্যে তৈরি হয়ে যায় অনেক ব্যাক্টিরিয়া, ছত্রাক। হঠাৎ করে চালিয়ে দিলে সেইগুলো ঘরের মধ্যে ছড়িয়ে পড়ে আর তার থেকে হতে পারে নিউমোনিয়া, সাইনোসাইটিসের মতো সমস্যা। যা এই সময় আরও বাড়িয়ে দিতে পারে আতঙ্ক।
• এসি চালালেও দিনের কোনও একটা সময় অন্তত জানালা দরজা খুলে দিন। সরিয়ে দিন পর্দা। ঘরে সূর্যের আলো আসতে দিন। ক্রস ভেন্টিলেশন হোক ঘরের মধ্যে।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.